অক্টোবর ২৯, ২০২০ ৭ : ৫৫ পূর্বাহ্ণ
Breaking News
Home / Tech / জীবননগর হাসাদাহ-রায়পুর সড়কে ইট ভাটার মাটি টানা ট্রাক্টরের বেপরোয়া চলাচল প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা

জীবননগর হাসাদাহ-রায়পুর সড়কে ইট ভাটার মাটি টানা ট্রাক্টরের বেপরোয়া চলাচল প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা

হাসাদাহ প্রতিনিধি ঃ ইট ভাটার মাটি টানা ট্রাক্টরের বেপরোয়া চলাচলের কারনে নষ্ট হচ্ছে চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলার হাসাদাহ হইতে রায়পুর বাজার যাতায়াতের প্রধান সড়ক। কৃষি কাজে ব্যবহারের জন্য দেশে ট্রাক্টর আনা হলেও সেই ট্রাক্টর কৃষি কাজে ব্যবহার হচ্ছে না। ব্যবহার হচ্ছে গ্রামের ছোট সড়ক থেকে শুরু করে শহরের মহাসড়ক পর্যন্ত সর্বত্র এর অবাধ বিচরণের কারণে সড়কের ব্যাপক ক্ষতির পাশাপাশি কোনো না কোনো দিন এর চাকায় পিষ্ট হয়ে মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। সব দিক দিয়ে ক্ষতিকর এ যন্ত্র দানবটি কার বা কাদের স্বার্থে সড়কে চলাচল করছে এটা কারোরই বোধগম্য নয়। জানা যায়, এটি এখন শহর-গ্রাম সর্বত্র কাঁচা-পাকা সড়কে অবাধে বীরদর্পে চলাচল করছে। আর এর মাধ্যমে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে সড়ক, দূষিত হচ্ছে পরিবেশ এবং কেড়ে নেয়া হচ্ছে মানুষের প্রাণ। ট্রাক্টর চালকদের কারো ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই। বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) ট্রাক্টর চালনার উপর কোনো ধরনের লাইসেন্স ইস্যু করে না। বেপরোয়া গতির কারণে প্রায় সময় ট্রাক্টর নিজে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে, না হয় দুর্ঘটনা ঘটিয়ে মানুষ মারছে। কথিত রয়েছে, যারা ট্রাক্টর চালাচ্ছে বা ট্রাক্টরে শ্রমিক হিসেবে কাজ করছে তাদের মধ্যে অধিকাংশ নেশাগ্রস্থ। সড়কে ট্রাক্টর চলাচল করা যাবে না এ জন্যে সরকারি আইন রয়েছে। আর সে আইনকে তোয়াক্কা না করে ট্রাক্টর সড়ক-মহাসড়ক দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছে এবং মানুষও মেরে ফেলছে। জীবননগর উপজেলায় প্রায় সবকটি সড়কে এর বিচরন দেখা যায় । বিশেষ করে জীবননগর উপজেলার হাসাদাহ বাজার হতে মাধবপুর পর্যন্ত এই রাস্তাটিতে সবচেয়ে বেশি দানব রূপী ইট ভাটার মাটি টানা ট্রাক্টরের চলাচল করতে দেখা যায়। এ ছাড়াও বালিহুদা হতে রায়পুর বাজারে যাতায়াতের প্রধান সড়কে ইট ভাটার মাটি টানা ট্রাক্টর চলাচলের কারনে সড়কের প্রায় সব জায়গাতেই অসংখ্য খানা খন্দের সৃষ্টি হয়েছে। আর এই খানা খন্দ রাস্তা সংস্কার করা হচ্ছে মাটি দিয়ে আর এ কারনেই যে কোন যানবাহন চলাচল করলেই উড়ন্ত ধুলার কুয়াশাই ঢেকে যাচ্ছে রাস্তাগুলো যারফলে স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা সহ সড়কের অন্যন্য পথচারীরা পড়ছেন বিপাকে, পড়ছেন দূর্ঘটনার কবলে। ইট, বালু, রড, সিমেন্ট , কাঁচা মাল সহ সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে ইট ভাটার মাটি টানা পরিবহন হিসেবে । ট্রাক্টর থেকে উড়ন্ত বালু , মাটি বাতাসের সাথে উড়ে পথচারীদের চোখে মুখে পড়ছে। অনেকের চোখ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এ কারণে। তাছাড়া যারা শ্বাস কষ্ট জনিত রোগে আক্রান্ত তাদের ক্ষতি হচ্ছে বেশি। উক্ত বিষয়টি নিয়ে ট্রাক্টর চালকদের সাথে তাদের এই বেরোয়া গাড়ি চালানো সম্পর্কে কথা বললে তারা সাংবাদিক ও এলাকার সূধিজনদের সাথে প্রায়ই অসৌজন্যমূলক আচরন করে বলেন যে, আমাদের টিপ প্রতি পয়সা। তাই তারা মানুষের জীবনের দিকে না তাকিয়ে টাকার দিকে তাকিয়ে বেপরোয়া গতিতে দানব প্রকৃতির এই ট্রাক্টর অবাধে বিচরন করছে। তাই এলাকার সর্বসাধারন, পথচারী ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীদের দাবি, উক্ত বিষয়টি বন্ধ করতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ সকল উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সু-দৃষ্টির মাধ্যমে আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এই বেপরোয়া গতির মাটি টানা ট্রাক্টরের দূর্ঘটনার কবলে পড়ে তারা আর পঙ্গুত জীবন যাপন করতে চাইনা।

 

Check Also

কোটচাঁদপুরে হাত ধোয়া দিবস ২০১৭ অনুষ্ঠিত

কোটচাঁদপুর(ঝিনাইদহ)থেকে সুমনঃ আমার হাতেই আমার সু স্বাস্থ্য ২৬ অক্টোবর বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস ২০১৭ উপলক্ষ্যে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *