অক্টোবর ২৬, ২০২০ ৭ : ৩৯ পূর্বাহ্ণ
Breaking News
Home / Tech / জীবননগর রায়পুরে নারী ও শিশু পাচারকারী গুজব ঃ আতঙ্কিত এলাকাবাসী অপহরনকারী সন্দেহে ২ প্রতিবন্ধিকে গণধোলাই

জীবননগর রায়পুরে নারী ও শিশু পাচারকারী গুজব ঃ আতঙ্কিত এলাকাবাসী অপহরনকারী সন্দেহে ২ প্রতিবন্ধিকে গণধোলাই

নিজস্ব প্রতিনিধি ঃ নারী ও শিশু পাচারকারী গুজব ছড়িয়ে পড়েছে চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে। নারী ও শিশু অপহরনকারী গুজব আতঙ্কে আতঙ্কিত হয়ে চরম হতাশাই জীবনযাপন করছেন এ অঞ্চলের সর্বসাধারন মানুষ। এরই মধ্যে জীবননগর উপজেলার রায়পুরে অপহরনকারী সন্দেহে ২ প্রতিবন্ধিকে গণধোলাই দিয়েছে এলাকাবাসী। গতকাল শুক্রবার সকাল ১০ টার দিকে জীবননগর উপজেলার রায়পুর গ্রামের হুদাপাড়ায় এই ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসীর সুত্রে জানা যায়, বাক প্রতিবন্ধি বয়স্ক এক ভিক্ষুক ভিক্ষার উদ্দোশ্যে রায়পুর হুদাপাড়ায় গাড়ি থেকে নেমে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ১০-১২ বছর বয়সী এক শিশুকে কিছু জিজ্ঞেস করতে চাইলে বাচ্চাটি কোন কিছুর বুঝে উঠার আগেই ছেলে ধরা বলে চিৎকার শুরু করে। এমন সময় একই পাড়ায় বসবাসকারী রহমের ছেলে রিপন ও তাঁরাচান মিয়ার ছেলে কালাম সহ উপস্থিত উঠতি বয়সী কিছু যুবক ঐ ভিক্ষুককে নারী ও শিশু পাচারকারী সন্দেহে তাকে কোন কিছু জিজ্ঞেস না করেই লাঠি ও বাঁশ দিয়ে বেধড়ক পেটাতে শুরু করে এমন সময় একই পাড়ায় বসবাসকারী রায়পুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড সদস্য আশাদুল ইসলাম অবস্থার বেগতিক দেখে বাক প্রতিবন্ধি ভিক্ষুককে কৌশলে বুদ্ধি খাটিয়ে জনরসের কবল থেকে উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে আটকে রাখে। অপরদিকে সকাল ১১টার দিকে একই ইউনিয়নে রায়পুর বাজারে চৌগাছা উপজেলার আন্দুলিয়া গ্রামের আহসান কবির ওরফে গ্রাম্য ডাক্তার আশাদুল ইসলামের ছেলে বিশ্ববিদ্যালয় পড়–য়া বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র বর্তমানে মানসিক প্রতিবন্ধি আওরঙ্গজেব মিঠু (৩৫) যার কিনা সারাক্ষন নিজ বাড়িতে শিকল দিয়ে বাধা অবস্থায় রাখতে হয় সেই মানসিক প্রতিবন্ধি বাড়ি থেকে পালিয়ে অজানার উদ্দ্যেশে রওনা হলে রায়পুর বাজারে পৌছালে উপস্থিত জনতা তাকে নারী ও শিশু পাচারকারী সন্দেহে আটক করে তাকে বেধড়ক পেটাতে শুরু করে। ঘটনার সময় মানসিক প্রতিবন্ধি মিঠুর হাতে শিকল বাধা অবস্থায় ছিল। পরে এলাকাবাসী নারী ও শিশু পাচারকারী সন্দেহে আটককৃত ২ ব্যক্তিকে রায়পুর হুদাপাড়ার মসজিদের সামনে এনে তাদেরকে প্রকাশ্য জনসম্মুখে গাছের সাথে পিটমুড়া দিয়ে বেধে আবারো বেধড়ক পিটিয়ে অমানসিক নির্যাতন শুরু করে। উক্ত ঘটনাটি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যন তাহাজ্জত হোসেন মীর্জা ও স্থানীয় সাংবাদিক মনিরুজ্জামান রিপন, সাইদুল আলম মিল্টন, ফেরদৌস ওয়াহিদ, শাহাবুদ্দিন শোনার সাথে সাথে ঘটনাস্থলে পৌছান এবং স্থানীয় ইউপি সদস্য আশাদুল ইসলাম, শুকুর আলীর সহযোগিতায় তাদেরকে জনরসের কবল থেবে উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যান। পরে আটককৃত ব্যাক্তিদের সাথে কথা বলে তাদের আচরনে পাগল, মানসিক ও বাক প্রতিবন্ধি মনে হওয়ায় স্থানীয় চেয়ারম্যন ও সাংবাদিকরা স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের পরামর্শক্রমে তাদেরকে মুক্ত করে দেন। উক্ত ঘটনাটি সম্পর্কে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যন তাহাজ্জাত হোসেন মীর্জার কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদেরকে বলেন যে, একজন মানসিক প্রতিবন্ধি ও আরেকজন বাক প্রতিবন্ধি ভিক্ষুক। তারা নারী ও শিশু অপহরনকারী নয়। এটা শুধুমাত্র গুজব ছাড়া আর কিছুই না।

Check Also

জীবননগর -কালীগঞ্জ মহাসড়কের বৈদ্যনাথপুরে ঘাতক ট্রাক্টর কেড়ে স্কুল ছাত্রীর প্রাণ

আল-আমিন হাসাদাহ থেকেঃ শুকতারার আর যাওয়া হলো না অসুস্থ নানাকে দেখতে। নানাকে একটিবার শেষ দেখার সুযোগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *