এপ্রিল ২৩, ২০২১ ৬ : ০৬ অপরাহ্ণ
Breaking News
Home / Tech / জীবননগর রায়পুর ইউপি চেয়ারম্যন তাহাজ্জত হোসেন মীর্জার বিরূদ্ধে অভিযোগঃ১১জন ইউপি সদস্যর লিখিত অনাস্থা জ্ঞাপন

জীবননগর রায়পুর ইউপি চেয়ারম্যন তাহাজ্জত হোসেন মীর্জার বিরূদ্ধে অভিযোগঃ১১জন ইউপি সদস্যর লিখিত অনাস্থা জ্ঞাপন

রায়পুর প্রতিনিধিঃ জীবননগর উপজেলার ৬নং রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদের সেই বহুল আলোচিত-সমালোচিত চেয়ারম্যন তাহাজ্জত হোসেন মীর্জার বিরূদ্ধে অভিযোগ তুলে অত্র ইউনিয়নের ১১জন ইউপি সদস্যরা লিখিত অনাস্থা জ্ঞাপন করেছে। গতকাল মঙ্গলবার অত্র ইউনিয়নের ১১জন ইউপি সদস্য চেয়ারম্যনের বিরূদ্ধে অনাস্থা জ্ঞাপন করে লিখিত অভিযোগপত্র মাননীয় বিভাগীয় কমিশনার খুলনা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার জীবননগর,চুয়াডাঙ্গা ও ইপ-পরিচালক, দূর্নীতি দমন বিভাগ, খুলনা বরাবর পেশ করেন। জানা যায়, জীবননগর উপজেলার বৃহত্তর সাবেক বাঁকা ইউনিয়ন জনগনের সুবিধা ও এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে ২০১২সালে ভেঙ্গে ৩টি ইউনিয়নে রূপান্তরিত করা হয়। ৩নং বাঁকা, ৫নং হাসাদাহ ও ৬নং রায়পুর ইউনিয়ন। তারই ধারাবহিকতায় ২০১৩ সালের ২৭শে এপ্রিল নবগঠিত অত্র ইউনিয়ন গুলিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নবগঠিত রায়পুর ইউনিয় পরিষদ নির্বাচনে তাহাজ্জত হোসেন মীর্জা চেয়ারম্যন পদে বিজয়ী হয়ে অত্র ইউনিয়নের ১১ জন ইউপি সদস্য সহ তিনি ৪ঠা জুন ২০১৩ সালে শপথ গ্রহন করেন। এবং ৮ই জুন ২০১৩ সালে নবগঠিত রায়পুর ইউনিয়নের দায়িত্বভার গ্রহন করেন। সেই থেকেই অভিযুক্ত তাহাজ্জত চেয়ারম্যন একক সিদ্ধান্তে অত্র ইউনিয়নের ইউপি সদস্যদের পরামর্শ বাদেই তিনি ইউনিয়ন পরিষদের সমস্ত কার্যক্রম বিগত ৪ বছর যাবত এককভাবে পরিচালনা করে আসছিল। ইতিপূর্বে তার কার্যকলাপ সম্পর্কে ইউপি সদস্যরা ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম ও আয়/ব্যয়ের হিসাব জানতে চাইলে তিনি তাদেরকে এড়িয়ে চলেন এমনকি মারমুখি ভূমিকায় ইউপি সদস্যদেরকে দমিয়ে রাখেন। উক্ত চেয়ারম্যন বিগত ৪বছর বিভিন্ন ভুয়া প্রকল্প দেখিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেছেন, এডিপির অর্থায়নে নির্মিত রাস্তা দেখিয়ে এল জি এসপির টাকা আত্মসাৎ সহ কর্মসৃজনের লেবার দিয়ে খাল খনন করে ১% এর এক লক্ষ টাকা আত্মসাৎ, সরকারী অনেক টাকা আত্মসাৎ সহ গত ২বছর যাবত ইউপি সদস্যদের কোন সম্মানি ভাতা দেওয়া হয়নি তার বিরূদ্ধে এই রকম অভিযোগ তুলে অত্র ইউনিয়নের ১১জন ইউপি সদস্য তার বিরূদ্ধে অনাস্থা জ্ঞাপন করেছেন। অভিযোগকারী ইউপি সদস্যরা মিলনুর রহমান, জেহের আলী, আব্দুল লতিফ, আসাদুল হক, আব্দুল মালেক, ফয়জুন নেছা, আব্দুস শুকুর, তরিকুল ইসলাম, কহিনুর, কুলসুম ও নুরুননাহার উক্ত চেয়ারম্যনের উপযুক্ত বিচার ও শাস্তির ব্যবস্থা সহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের বিশেষভাবে অনুরোধ জানান। এছাড়াও ইউপি চেয়ারম্যন তাহাজ্জত হোসেন মীর্জার বিরূদ্ধে সাধারণ মানুষদেরকে ভয় ভীতি প্রদর্শন করে টাকা আদায়, বিনা অপরাধে গ্রাম্য শালিশের মাধ্যমে মোট অংকের টাকা হাতিয়ে নেওয়া সহ আরো অনেক অভিযোগ তোলেন এলাকাবাসী। উক্ত বিষয়টি সম্পর্কে রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যন তাহাজ্জত হোসেন মীর্জার সাথে কথা বললে তিনি সাংবাদিকদেরকে জানা যে, আমার বিরূদ্ধে যে সকল অভিযোগ তুলে ইউপি সদস্যরা আমার বিরূদ্ধে অনাস্থা জ্ঞাপন করেছেন সেই সকল অভিযোগ সত্য নয়। তিনি আমাদের সাথে বলেন যে, প্রত্যেক প্রকল্পের নিয়মিত নিয়ম অনুযায়ী সভাপতি হয় ইউপি সদস্যরা বিধায় আমার সভাপতি হওয়ার সুযোগ নেই। অপরদিকে উক্ত বিষয়টি নিয়ে ডি ডি এল জি কর্মকর্তা আঞ্জুমান আরার সাথে কথা বললে তিনি জানান যে, আমরা এখনো পর্যন্ত অভিযোগ পত্রটি পায়নি। হাতে পেলে আমরা উক্ত চেয়ারম্যনের বিরূদ্ধে আইনানুগ শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহন করব। এলজিএসপি সহ বিভিন্ন প্রকল্পের কাজের সভাপতি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন চেয়ারম্যন প্রকল্পের সভাপতি হতে পারেন। উক্ত বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে অত্র ইউনিয়নের সবার মুখে মুখে ব্যপক কৌতুহুলের সৃষ্টি হয়।

Check Also

জীবননগর -কালীগঞ্জ মহাসড়কের বৈদ্যনাথপুরে ঘাতক ট্রাক্টর কেড়ে স্কুল ছাত্রীর প্রাণ

আল-আমিন হাসাদাহ থেকেঃ শুকতারার আর যাওয়া হলো না অসুস্থ নানাকে দেখতে। নানাকে একটিবার শেষ দেখার সুযোগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *